পাঠক্রম

শাহবাগ জামিয়া মাদানিয়া ক্বাসিমুল উলূমের শিক্ষাক্রম নিম্নলিখিত পাঁচটি শাখায় বিভক্ত: ১. সাধারণ শাখা, ২. বালিকা শাখা, ৩. হিফয (কুরআন মুখস্থকরণ) শাখা, ৪) ইসলামিক কিন্ডারগার্টেন এবং ৫. কিরাআত (পবিত্র কুরআনের ধ্বনিবিদ্যা) শাখা।

ঐতিহ্যগতভাবে হিমালয়ান উপমহাদেশের সমস্ত কওমি মাদরাসা সপ্তদশ শতকে প্রণীত পাঠক্রম “দারস-ই নিযামী”-এর অনুসারী। এই পাঠক্রমটি এমনই মৌলিক এবং অসাধারণ যে, সময়ের পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে নিচের দিককার শ্রেণীগুলিতে কিছু সংযুক্তি-সংস্কার সাধিত হলেও এর মূল রূপরেখায় আজও মৌলিক কোনও পরিবর্তনের প্রয়োজন দেখা দেয় নি। বাংলাদেশে এই পাঠক্রমের উল্লেখযোগ্য পাঠ্য বিষয় হলো: পবিত্র কুরআন, হাদীস, ফিকহ (ইসলামিক আইনশাস্ত্র), তাফসীর (পবিত্র কুরআনের ব্যাখ্যা), আরবী ভাষা, ব্যাকরণ ও অলঙ্কারশাস্ত্র, উসূল-ই ফিকহ (ইসলামিক আইনের মূলনীতি), উসূল-ই তাফসীর (পবিত্র কুরআনের ব্যাখ্যার মূলনীতি), উসূল-ই-হাদীস (হাদীসের মান নির্ণয়ের মূলনীতি), আংশিকভাবে বাংলা-উর্দু-ইংরেজি ভাষা-সাহিত্য, ইসলামের ইতিহাস প্রভৃতি। বাংলাদেশের অন্যান্য কওমি মাদরাসার মতো শাহবাগ জামিয়াও দারস-ই নিযামীর অনুসারী। তবে সময়ের প্রয়োজনের সঙ্গে যথাসাধ্য সমন্বয় রক্ষা করতে বিশেষত প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের জন্যে আমরা এই পাঠক্রমটি ধাপে ধাপে সংস্কার করার পদক্ষেপ গ্রহণ করি, সময়ে সময়ে পর্যালোচনা কমিটি গঠন করি এবং প্রয়োজনীয় সংশোধন ও সংযোজন শুরু করি। এরই ফলে শাহবাগ জামিয়ার এতিমখানা শাখা এবং প্রাথমিক শাখার পরিমার্জিত পাঠক্রমটি আমাদের নিজস্ব গবেষণা এবং পরিশ্রমের ফল। অন্যদিকে, আমাদের বালিকা শাখার পাঠক্রম এই দারস-ই নিযামীরই দশ বছর মেয়াদী একটি সংক্ষেপিত রূপ। এছাড়াও, তাহফীয আল-কুরআন (কুরআন মুখস্থকরণ) শাখা এবং রমযান মাসে পরিচালিত দার-আল-ক্বিরাআত (পবিত্র কুরআনের বিশুদ্ধ উচ্চারণবিষয়ক) শাখার জন্যে আলাদা আলাদা পাঠক্রম রয়েছে।